আজ বুধবার, আগস্ট ১২, ২০২০ইং

আজমিরীগঞ্জে জাল চুরি করার সময় হাতেনাতে ব্যবসায়ী আটক

এনামুল হক মিলাদ, আজমিরীগঞ্জ প্রতিনিধিঃ
হবিগঞ্জের আজমিরীগঞ্জ উপজেলার ২নং বদলপুর ইউনিয়নের পাহাড়পুরে নদীতে জেলেদের জাল চুরি করার সময় হাতে নাতে পাহাড়পুর বাজারের এক জাল ব্যবসায়ী জনতার হাতে আটক হয়েছে। পরে সালিশের মাধ্যমে ৮ হাজার টাকা মুচলেকা দিয়ে মুক্তি পায় ঐ জাল ব্যবসায়ী ৷

স্থানীয় সুত্রে জানা যায়, ১লা আগস্ট (শনিবার) রাতে উপজেলার ২ নং বদলপুর ইউনিয়নের পাহাড়পুরে নিকলী ঢালা নামক স্থানে সুনামগঞ্জ জেলার শাল্লা থানার ফয়জুল্লাপুর গ্রামের কতিপয় জেলে নদীতে মাছ ধরার জন্য জাল ফেলে ৷
মধ্যরাতে পাহাড়পুর বাজারের জাল -সুতা ব্যবসায়ী গোপাল মেম্বার ফয়জুল্লাহপুরের জেলেদের জাল চুরি করতে নিকলীর ঢালায় যায় ৷ জাল চুরির এক পর্যায়ে স্থানীয় লোকজন এবং জেলেরা গোপাল মেম্বারকে পাহাড়পুর শ্মশান ঘাট এলাকা থেকে আটক করে ৷
পরে, আটক গোপাল মেম্বারকে শাল্লা ইউনিয়নের সাবেক চেয়ারম্যান সুবল দাসের নির্দেশনায় পাহাড়পুর পুর্বকালনী গ্রামের কুণ্ঞ্জ লাল দাসের বাড়িতে আটকে রাখা হয় ৷
২রা আগষ্ট( রোববার) সকালে পাহাড়পুরের পুর্বকালনী গ্রামের কুন্ঞ্জলাল দাস, রানু দাস এবং শাল্লা ইউনিয়নের সাবেক চেয়ারম্যান সুবল দাসের মাধ্যমে শালিস বসে ৷
উক্ত সালিসে ফয়জুল্লাহপুর, পাহাড়পুর এবং গোপাল মেম্বারের গ্রামের বাড়ি বানিয়াচং উপজেলার আইড়ামুগুর গ্রামের প্রায় দুই শতাধিক লোকের সামনে ৮ হাজার টাকা মুচলেখায় মুক্তি দেয়া হয় আটক গোপাল মেম্বারকে ৷

এ বিষয়ে পুর্বকালনী গ্রামের রানু দাসের সাথে যোগাযোগ করা হলে উনার ব্যবহৃত মোবাইল নম্বরটি বন্ধ পাওয়া যায় ৷
পুর্ব কালনী গ্রামের কুণ্ঞ্জলাল দাসের সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি বিষয়টি অন্যদিকে মোড়ানোর চেষ্টা করে বলেন- এটা এমন কিছু নয় গোপাল মেম্বার মদ খেয়ে নৌকায় আসার পথে জাল নষ্ট হওয়ায় তার দাম পরিশোধ করা হয়েছে ৷

এ বিষয়ে অভিযুক্ত গোপাল মেম্বারের সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি ও কুণ্ঞ্জলাল দাসের সুরে বলেন আমি বোনের বাড়ি থেকে আসার সময় নৌকায় জাল নষ্ট হয়।
মুচলেখার বিষয়টি জানতে চাইলে বিষয়টি অস্বীকার করে পাহাড়পুর গিয়ে উনার সাথে দেখা করার কথা বলেন তিনি।

ভোরের সিলেট/এএইচএম/টিএ