আজ রবিবার, জুলাই ১২, ২০২০ইং

বিশ্বনাথে স্বর্ণালংঙ্কার মোবাইল ছিনতাই, হামলার ঘটনায় মামলা

বিশ্বনাথ প্রতিনিধি
সিলেটের বিশ্বনাথ উপজেলার সদর ইউনিয়নের গোয়ালগাঁও গ্রাম থেকে পার্শ্ববর্তী মিরেরচর-২ (শরিষপুর) গ্রামস্থ নিজ বাড়িতে যাওয়ার পথে বিয়ের স্বর্ণালংঙ্কার, কাপড় ও মোবাইল ফোন লুট হওয়ার অভিযোগ পাওয়া গেছে। লুটকারীকে ধাওয়া করে নিজেদের জিনিসপত্র ফেরত চাওয়ায় স্বর্ণালংঙ্কার-কাপড়-মোবাইল সেট লুটকারী চক্র ক্ষতিগ্রস্থদের উপর হামলা করে।

মঙ্গলবার (৩০ জুন) রাত ৮টার দিকে বিশ্বনাথ-মিরেরচর-হাবড়া সড়কের গোয়ালগাঁও গ্রামস্থ আলীমা ভিলার সামনে ঘটনাটি ঘটে।

স্বর্ণালংঙ্কার-কাপড়-মোবাইল সেট লুটকারী চক্রের হামলায় আহত হয়েছেন মিরেরচর-২ (শরিষপুর) গ্রামের মানিক মিয়ার স্ত্রী মোছা. জয়তুন নেছা (৫৫), চাচাতো ভাই ফয়ছল আহমদ (২০)। এসময় লুটকারী চক্রের সদস্যরা জয়তুন নেছাকে টানাহেচড়া করে শ্লীলতাহানী এবং ফয়ছল আহমদকে হত্যার উদ্দেশ্যে গুরুতর আহত করেছে বলে অভিযোগ পাওয়া যায়।

স্বর্ণালংঙ্কার-কাপড়-মোবাইল সেট লুট ও হামলার ঘটনায় মিরেরচর-২ (শরিষপুর) গ্রামের মানিক মিয়ার স্ত্রী মোছাঃ জয়তুন নেছা বাদী হয়ে বিশ্বনাথ থানায় মামলা দায়ের করেছেন। মামলা নং ২১ (তাং ২৯.০৬.২০ইং)। মামলার অভিযুক্তরা হলেন- উপজেলার গোয়ালগাঁও গ্রামের (আলীম ভিলা) মৃত আকলুছ আলীর পুত্র শাহিন মিয়া (৩৫), জাহাঙ্গীর মিয়া (২৫), জাহির আলীর পুত্র শাহেদ মিয়া (২২), মৃত আকলুছ আলীর স্ত্রী সুফিয়া বেগম (৫৭)। এছাড়া মামলায় আরো ৪ জনকে অজ্ঞাতনামা অভিযুক্ত করা হয়েছে।

মামলার এজাহার সূত্রে জানা গেছে, গত মঙ্গলবার রাত ৮টার দিকে বাদীর ভাইপো তানভির আহমদ (১৪) গোয়ালগাঁও গ্রামস্থ নিজ বাড়ি থেকে বাইসাইকেলযোগে শপিং ব্যাগে করে বিয়ের দুই সেট কাপড় (আনুমানিক মূল্য ৭ হাজার টাকা), ৭ ভরি স্বর্ণালংঙ্কার (আনুমানিক মূল্য ৩ লাখ টাকা), একটি মোবাইল ফোন সেট (আনুমানিক মূল্য ১৫ হাজার টাকা) নিয়ে তাদের পার্শ্ববর্তী গ্রাম মিরেরচর-২ (শরিষপুর) গ্রামের মানিক মিয়ার স্ত্রী মোছাঃ জয়তুন নেছার বাড়িতে যাচ্ছিলেন। পথিমধ্যে আলীমা ভিলার সামনে বাইসাইকেল রেখে সড়কের পাশে প্রস্রাব করতে বসে। তানভির প্রস্রাবে থাকা অবস্থায় দেখতে পান একটি ছেলে তার সাইকেলে তার জিনিপত্রের ব্যাগটি নিয়ে দৌড়ে আলীমা ভিলার ভিতরের দিকে যাচ্ছে। সেও তখন ছেলেটির পিছু পিছু দৌড়ে যায় এবং দেখতে পায় তখন ওই ছেলেটি আলীমা ভিলার একটি রুমে ডুকে দরজা বন্ধ করে দেয়। একাধিক বার ডাকাডাকির পরও ছেলেটিসহ ঘরের কেউ দরজা না খুললে তানভির বাড়িতে গিয়ে বাদীকে বিষয়টি অবহিত করে। এরপর, বাদী স্বাক্ষীদের নিয়ে আলীমা ভিলায় উপস্থিত হন। অনেকক্ষন ডাকাডাকির পর বিবাদীগণ ঘরের বাইরে এসে বাদীসহ স্বাক্ষীদেরকে অকথ্য ভাষায় গালিগালাজ শুরু করে। এক পর্যায়ে বিবাদীগন দা’সহ দেশীয় অস্ত্র-সস্ত্রে সজ্জিত হয়ে বাদীসহ তার সঙ্গে থাকা লোকজনের উপর হামলা করে। হামলায় বাদীর চাচাতো ভাই ফয়ছল আহমদ গুরুতর আহত হয় এবং বাদীকে টানা-হেচড়া করে শ্লীলতাহানী করে। বিবাদীগণ বাদীকে কিল ঘুষি লাথি মারতে মারতে এক পর্যায়ে ঘটনাস্থলে থাকা একটি গাড়ির উপর ফেলে দিলে গাড়ির গ্লাস ভেঙ্গে যায়।

এ ঘটনায় থানায় মামলা দায়েরের সত্যতা স্বীকার করেছেন বিশ্বনাথ থানার অফিসার ইন-চার্জ (ওসি) শামীম মুসা।

ভোরের সিলেট/কেএ/টিএ

সংবাদটি শেয়ার করুন: