আজ রবিবার, জুলাই ১২, ২০২০ইং

ভারতে নিষিদ্ধ করা হয়েছে চিনা ৫৯টি অ্যাপ, উদ্বেগ প্রকাশ করছেন চিনা রাষ্ট্রদূত

ভোরের সিলেট ডেস্কঃ ভারতে নিষিদ্ধ করা হয়েছে ৫৯টি অ্যাপ। উদ্বেগ প্রকাশ করছে চিন। সোমবারই চিনা অ্যাপ বন্ধ করে দেওয়ার কথা ঘোষণা করা হয়েছে কেন্দ্রীয় সরকারের তরফে। এরপর মঙ্গলবার এই বিষয়ে উদ্বেগ প্রকাশ করলেন চিনের বিদেশমন্ত্রকের মুখপাত্র লিও ঝিজিয়াং। তিনি বলেন, আমরা এই বিষয়ে খুবই উদ্বিগ্ন। পুরো পরিস্থিতি খতিয়ে দেখছি।

এদিন তিনি বলেন, ‘আমরা চিনা সংস্থাগুলিতে বারবারই বলে এসেছি আন্তর্জাতিক এবং স্থানীয় আইন মেনে চলছে। ভারত সরকারের উচিৎ আন্তর্জাতিক সংস্থাগুলির আইনি অধিকার রক্ষা করা। চিনা সংস্থার ক্ষেত্রেও সেই অধিকার রক্ষা করতে হবে।’ শুধু চিনের বিদেশমন্ত্রকের তরফেই নয়।

মঙ্গলবার সন্ধ্যায় ফের একবার অ্যাপ ব্লক করা নিয়ে বার্তা চিনের তরফে। ভারতে নিযুক্ত চিনের রাষ্ট্রদূত জি রং বিস্তারিত একটি বিবৃতি টুইটারে পোস্ট করেন অ্যাপ ব্যান নিয়ে। জি বলেন, চিনের অ্যাপ বন্ধ করা নিয়ে বেজিং ভয়ঙ্কর ভাবে উদ্বিগ্ন। ভারতকে তাঁদেরকে বৈষম্যমূলক আচরণ বদলাতে আরজি জানাচ্ছি।

ভারতের সিদ্ধান্তের বিরোধিতা করে চিনের দাবি যে বেছে বেছে তাদের দেশের অ্যাপগুলিকে টার্গেট করা হয়েছে, যা বৈষম্যমূলক আচরণ বলেও মনে করছে চিন। যেই ধারা অনুযায়ী ব্যবস্থা নেওয়া হয়েছে সেগুলি অবাস্তব বলে মনে করে চিন। এটি বিশ্ব বাণিজ্য সংস্থার নীতির পরিপন্থী ও জাতীয় সুরক্ষা সংক্রান্ত আইনের অপব্যবহার বলে মনে করে চিন। একই সঙ্গে ন্যায় ও স্বচ্ছ প্রক্রিয়াকে লঙ্ঘন করা হয়েছে বলে অভিযোগ চিনে।

একই সঙ্গে এই অ্যাপ ব্যান ভারতীয় স্বার্থের পরিপন্থী বলেও মনে করে বেজিং। তাদের বক্তব্য এতে বাজারে প্রতিযোগিতা কমবে।

সোমবার রাত থেকে নিষিদ্ধ হওয়া এই অ্যাপগুলি স্মার্টফোন থেকে মুছে ফেলার জন্যে অনুরোধ জানানো হয়েছে দেশবাসীকে। কেন্দ্রীয় তথ্য সম্প্রচার ও বৈদ্যুতিন মন্ত্রকের তরফে এই নির্দেশিকা দেওয়া হয়। এই মর্মে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রকের তরফে একটি নির্দেশিকাও জারি করা হয়েছে। জানা গিয়েছে, ওই নির্দেশিকাতে টেলিকম সংস্থাগুলিকে ওই অ্যাপগুলিকে সরিয়ে নেওয়ার জন্যে বলা হয়েছে। রাতেই যাতে সরে যায় সেই বিষয়েও আবেদন করা হয় বলে জানা যায়।

কেন্দ্রের অভিযোগ, এই ৫৯টি অ্যাপ ভারতের ব্যবহারকারীদের তথ্য চুরি করছে। অ্যাপ ব্যবহারকারীর নাম, ঠিকানা, সোশ্যাল মিডিয়ার পোস্ট, নানারকম গুরুত্বপূর্ন তথ্যের উপর গোপনে নজরদারী চালায় এই অ্যাপগুলি। এমনকি, ভারতের সার্বভৌমত্ব, সৌভ্রাতৃত্বকেও চ্যালেঞ্জের মুখে ফেলছে। ভারতের প্রতিরক্ষা, নিরাপত্তাকেও নষ্ট করার চেষ্টা করছে এই অ্যাপগুলি।

ভোরেরসিলেট/Kolkata24x7/বিএ

সংবাদটি শেয়ার করুন: