আজ মঙ্গলবার, মার্চ ৯, ২০২১ইং

গোলাপগঞ্জ পৌর নির্বাচন : কাউন্সিলর পদে কে পেলেন কত ভোট?

গোলাপগঞ্জ প্রতিনিধি :: গোলাপগঞ্জে উৎসব মুখর পরিবেশে পৌরসভা নির্বাচনের ভোট গ্রহণ অনুষ্ঠিত হয়েছে। সকাল ৮টা থেকে বিকাল ৫টা পর্যন্ত শান্তিপূর্ণভাবে ভোট গ্রহণ অনুষ্ঠিত হয়। পরে ৯টি কেন্দ্রের ভোট গণনা শেষে রাত ৮টায় ফলাফল ঘোষনা করেন সহকারী রিটানিং কর্মকর্তা ও উপজেলা নির্বাচন অফিসার সাইদুর রহমান।

বেসরকারী ফলাফলে সাধারণ কাউন্সিলর পদে ১নং ওয়ার্ডে বিজয়ী হয়েছেন মোহাম্মদ জহির উদ্দিন। তিনি উটপাখি প্রতীক নিয়ে পেয়েছেন ৫৮৬টি ভোট। তাঁর নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী সুমন আলী পানির বোতল প্রতীকে পেয়েছেন ৪৪ ভোট, নাজমুল হোসেন টেবিল ল্যাম্প প্রতীকে পেয়েছেন ২৫২ ভোট ও মোহাম্মদ আলী পাঞ্জাবি প্রতীকে পেয়েছেন ১ ভোট।

২নং ওয়ার্ডে গাজর প্রতীক নিয়ে জামেল আহমদ চৌধুরী বিজয়ী হয়েছন। তিনি পেয়েছেন ৬২১টি ভোট। তাঁর নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী লায়েক আহমদ ব্ল্যাকবোর্ড প্রতীকে পেয়েছেন ৪৬ ভোট, ছাব্বির চৌধুরী মুন্না উটপাখি প্রতীকে পেয়েছেন ২২৯ ভোট, লায়েক আহমদ পানির বোতল প্রতীকে পেয়েছেন ১৫৪ভোট, মিনহাজ উদ্দিন টেবিল ল্যাম্প প্রতীকে পেয়েছেন ৮৩ভোট ও আব্দুল কাদির পাঞ্জাবী প্রতীকে পেয়েছেন ৭৯ভোট।

৩নং ওয়ার্ডে জবান আলী উটপাখি প্রতীক নিয়ে বিজয়ী হয়েছেন। তিনি পেয়েছেন ৩৮০টি ভোট। তাঁর নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী আ্জমল হোসেন পাঞ্জাবী প্রতীকে পেয়েছেন ৩৪১টি ভোট, মো. আব্দুল মতিন ব্ল্যাক বোর্ড প্রতীকে ২৯৯টি ভোট পেয়েছেন ও কাওসার আহমদ কাওছার আহমদ পানির বোতল নিয়ে ১৬৫টি ভোট পেয়েছেন।

৪নং ওয়ার্ডে এম ফজলুল আলম বিজয়ী হয়েছেন। তিনি পানির বোতল প্রতীক নিয়ে ৬৩৫টি ভোট পেয়ে বিজয়ী হয়েছেন। তাঁর নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী মঞ্জুর আহমদ উটপাখি প্রতীকে ৫৫২টি ভোট, গোলাম মস্তফা মুসা পাঞ্জাবী প্রতীকে ৪৪৫টি ভোট, ফখরুল ইসলাম সাহেদ ব্ল্যাকবোর্ড প্রতীকে ৬২ ভোট, খালেদ হোসেন টেবিল ল্যাম্প প্রতীকে ৫৩টি ভোট ও কাওছার আহমদ নেওয়ার ডালিম প্রতীক নিয়ে ৩১টি ভোট পেয়েছেন।

৫নং ওয়ার্ডে পানির বোতল প্রতীক নিয়ে ৬৩১ ভোট পেয়ে বিজয়ী হয়েছেন রুহিন আহমদ খান। তাঁর নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী মো. মুজিবুর রহমান পাজর প্রতীক নিয়ে ৩১৮ভোট, আবুল হোসেন বাদশা ডালিম প্রতীকে ২৯০ভোট, ফয়জুর রহমান বদরুল উট পাখি প্রতীকে ২০৬ ভোট, কবির আহমদ পাঞ্জাবী প্রতীকে ১৪৩টি ভোট ও সোলেমান আহমদ টেবিল ল্যাম্প প্রতীকে ১২০টি ভোট পেয়েছেন।

৬নং ওয়ার্ডে জায়েদ আহমদ গাজর প্রতীকে ৭৪৮টি ভোট পেয়ে বিজয়ী হয়েছেন। তাঁর নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী আব্দুল জলিল ব্লাক বোর্ড প্রতীক নিয়ে ৩৫৬টি ভোট, নাদিম আহমদ শিপলু টেবিল ল্যাম্প প্রতীক নিয়ে ২০১ভোট, নায়েদ আহমদ ডালিম প্রতীকে ১৮৭টি ভোট, সৈয়দ শাহনুর এলন পাঞ্জাবী প্রতীকে ২৮৪ভোট, হেলাল আহমদ উটপাখি প্রতীকে ১৩২টি ভোট, আজিজুর রহমান পাপন ফাইল কেবিনেট প্রতীকে ১৩১ভোট ও আব্দুর রহমান তফদার পেয়েছেন ২০ভোট।

৭নং ওয়ার্ডে হেলালুজ্জামান হেলাল পানির বোতল প্রতীক নিয়ে ৯৮০টি ভোট পেয়ে বিজয়ী হয়েছেন। তাঁর নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী রেজাউল হক রনি। তিনি ব্লাক বোর্ড প্রতীক নিয়ে ৭৯৪টি ভোট পেয়েছেন, মুর্শেদ চৌধুরী ডালিম প্রতীকে ১৫৪টি ভোট, দেলোওয়ার হোসেন উট পাখি প্রতীকে ১৩৪টি ভোট ও সুমন আহমদ পাঞ্জাবী প্রতীকে ৩৪টি ভোট পেয়েছেন।

৮নং ওয়ার্ডে ফারুক আলী উট প্রতীকে ৮২০ ভোট পেয়ে বিজয়ী হয়েছেন। তাঁর নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী মোহাম্মদ জামাল আহমদ জানাল পাঞ্জাবী প্রতীকে ৫৬৮টি ভোট ও জুবায়ের আহমদ পানির বোতল নিয়ে ৫০৯টি ভোট পেয়েছেন।

৯নং ওয়ার্ডে নজরুল ইসলাম টেবিল ল্যাম্প প্রতীকে ৬৮৫টি ভোট পেয়ে বিজয়ী হয়েছেন। তাঁর নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী ছাদেক আহমদ উটপাখি প্রতীকে ৫১৮ভোট, নাজিম উদ্দিন পানির বোতল প্রতীকে ৪৭২ভোট, মিনহাজুল ইসলাম পাঞ্জাবী প্রতীকে ৭০ভোট ও আবিদ হোসেন ডালিম প্রতীকে ৩৬টি ভোট পেয়েছেন।

এদিকে সংরক্ষিত মহিলা কাউন্সিলর পদে ১,২, ৩নং ওয়ার্ডে জবা প্রতীক নিয়ে শেফা বেগম বিজয়ী হয়েছেন। তিনি পেয়েছেন ১হাজার ৬৮৩টি ভোট। তাঁর নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী ছোফিয়া বেগম বলপেন প্রতীকে ৯২৮ভোট, স্বপ্না বেগম চশমা প্রতীকে ৮৬২ভোট, জলি রানী পাল আনারস প্রতীকে ৪৯৬ ভোট ও রহিমা আক্তার পপি টোলফোন প্রতীকে পেয়েছেন ১৪৬ টি ভোট।

৪,৫,৬নং ওয়ার্ডে ২হাজার ৩৭৫ টি ভোট পেয়ে আনারস প্রতীক নিয়ে বিজয়ী হয়েছেন মেহেরুন বেগম। তাঁর নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী নাজমা বেগম চশমা প্রতীকে ২হাজার ২৪২ টি ভোট ও মরিময় বেগম অটোরিকশা প্রতীকে পেয়েছেন ৭৩৯ টি ভোট।

৭,৮,৯ নং ওয়ার্ডে চশমা প্রতীক নিয়ে বিজয়ী হয়েছেন মনোয়ারা ফেরদৌস। তিনি পেয়েছেন ৩হাজার ৪৯৯টি ভোট। তাঁর নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী শামীমা বেগম আনারস প্রতীক নিয়ে পেয়েছেন ২হাজার ২৩৩ টি ভোট।

ভোরেরসিলেট/এমএআর/বিএ

আজকের সংবাদ